1. shahalom.socio@gmail.com : admin :
  2. banglaronusandhantv@gmail.com : বাংলার অনুসন্ধান : বাংলার অনুসন্ধান টিভি
রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ০৫:৪০ পূর্বাহ্ন
"
শিরোনাম
মাগুরায় গড়াই নদীতে শেখ রাসেল নৌকা বাইচ অনুষ্ঠিত নড়াইলে অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষককে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা  কবি ফররুখ উদ্দিন আহমেদের ৪৬তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত মাঠপর্যায়ে স্বাস্থ্যকর্মীদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ সংসদ সদস্য সাইফুজ্জামান শিখরের মাগুরা ইয়াবাসহ একজন মাদক ব্যবসায়ী আটক মাগুরা মহম্মদপুরের বাবুখালীতে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে উভয় পক্ষের ১০ জন আহত মাগুরার শ্রীপুরে ভয়াবহ আগুনে বাড়ি ও গোয়াল ঘর পুড়ে তছনছ মাগুরায় কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের নব নির্বাচিত বেসরকারী সংস্থা বিষয়ক সম্পাদক আসাদুজ্জামানের কবর জিয়ারত করলেন যেভাবে সরকারি প্রাইমারি শিক্ষক পদে আবেদন করবেন মাগুরায় কোলাহল পত্রিকার ফটো সাংবাদিক হিসাবে নিয়োগ পেলেন দাউদ জোয়ার্দার

মাগুরায় জাতীর স্মারক হয়ে ওঠা একটি বিদ্যুতের পোল

  • আপডেট করা হয়েছে সোমবার, ২৪ আগস্ট, ২০২০
  • ১৪৪ বার পড়া হয়েছে

সম্পাদকীয় কলাম

এইচ এন কামরুলইসলাম

মাগুরা সদর উপজেলার মীরপাড়া চৌরাস্তার মোড় একটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যস্ততম সড়ক। দীর্ঘকাল যাবৎ সড়কটির কিছু অংশ জুড়ে কোমর মোচকে যাওয়া বিদ্যুতের খাম্বা আমাদের চোখে আঙ্গুল দিয়ে জানান দিচ্ছে তার করুণ দুর্দশার দৃশ্য! এ যেন দেখার কেউ নেই। খাম্বাটি যে বহু আঘাতে জর্জরিত তার জীর্ণশীর্ণ কাঠামো দেখলে সহজেই অনুমান করা যায়। জানি না সে কোনো বঙ্গ সন্তানের জীবন কেড়ে কোনো মায়ের বুক খালি করেছে কিনা। তবে সড়ক পরিবহণে রাস্তাটি ব্যবহার করতে গিয়ে বহু পথচারী দুর্ঘটনায় পড়ে যে হাত পা খুইয়েছেন তা সহজেই অনুমেয়। তবে আশঙ্কা থেকে বলছি বড় কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে বিদ্যুতের তার ছিড়ে জনজীবনে যে ভয়াবহতা নেমে আসতে পারে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। জায়গাটি মূল শহর থেকে মাত্র কয়েকশ গজ দূরে হওয়ায় জেলা প্রশাসনের সকল পর্যায়ের শীর্ষ কর্তাব্যক্তিদেরকে কারণে – অকারণে রাস্তাটি ব্যবহারের প্রয়োজন পড়ে।

প্রতেকদিন প্রাতঃভ্রমণেও কোনো না কোন অফিসার জায়গাটি অতিবাহিত করেন তাতে সন্দেহ নাই। প্রভাব এবং জনপ্রিয়তার দিক থেকে এগিয়ে থাকা দুইজন সাংসদ তাদের নির্বাচনী এলাকায় যাতায়াতের জন্য অসংখ্যবার মীরপাড়া মোড়টি ব্যবহার করে থাকেন। বাংলাদেশ পাওয়ার ডেভেলপমেন্ট বোর্ডের জেলা প্রধান (নির্বাহী প্রকৌশলী) দাপ্তরিক কাজের অংশ হিসেবে তাঁর সমস্যা সম্বলিত স্থানসমূহের খোঁজখবর রাখার কথা। আমাদের ন্যায় আমজনতার চেয়ে অবশ্যই সাংসদ, ডিসি, এসপি, আইনজীবী, বিচারক, এবং জনপ্রতিনিধিসহ উর্ধ্বতনদের দৃষ্টি অতি তীক্ষ্ণ । এতসব সূক্ষ্ম দৃষ্টিসম্পন্ন মানুষের চোখ ফাঁকি দিয়ে দুমড়েমুচড়ে যাওয়া বিদ্যুতের খুঁটি স্বগৌরবে দাঁড়িয়ে থাকা মোটেও মানানসই নয়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে মহম্মদপুরের একজন বলেন,বাড়ি অজপাড়াগাঁয়ে হলেও ছোটখাটো কাজে জেলা শহর মাগুরাতে প্রায় যাতায়াতের প্রয়োজন পড়ে। গণপরিবহন বা মোটরসাইকেল যোগে যতবার জায়গাটি অতিক্রম করি ততোবারই ভাবি আর আফসোস করি হায়! এতোবড় জনবহুল এবং গুরুত্বপূর্ণ একটি রাস্তার অংশবিশেষ জুড়ে যমদূত হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা, দুমড়ে মুচড়ে যাওয়া ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যুতের খুঁটিরজোর কি এতই শক্তিশালী! তাকে (খুঁটি) অপসরণ করার মতো কোনো সংস্থা বা প্রতিষ্ঠান কি মাগুরাতে নেই! বিদ্যুতের খুঁটির আর্তনাদ সাধারন পথচারীর কাছে দৃশ্যমান হলেও কর্তৃপক্ষের কাছে কেন অদৃশ্যমান তা সাধারন জনগনকে কৌতুহলী করে তুলছে!

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন
প্রকাশক কর্তৃক সর্বসত্ব সংরক্ষিত

Designed by: Nagorik It.Com